আইসিসি সহ-সভাপতি হতেই বিসিবি সভাপতির পদ ছাড়ছেন?

প্রথম প্রকাশঃ আগস্ট ৯, ২০১৭ সময়ঃ ৮:২৯ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ

নতুনদের সুযোগ দিতে বিসিবি সভাপতির পদ ছাড়তে প্রস্তুত নাজমুল হাসান পাপন। নিজের ইচ্ছার কথা সাংবাদিকদের এভাবেই জানিয়েছেন তিনি। আগামী মাসে বিসিবির এজিএম ইজিএম। এ নিয়ে বিসিবির মাঠ গরম। তবে সবার মতে, নাজমুল হাসান পাপনের এভাবে স্বইচ্ছায় বোর্ড প্রধান পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ইচ্ছে প্রকাশ করাটাকে সবাই ইতিবাচক পরিবর্তন হিসেবে দেখছে। যদিও বর্তমান বোর্ডে নাজমুল হাসান পাপনের অবস্থান প্রায় বেশ মজবুজ বলা চলে। বর্তমান পরিচালক পর্ষদে তার জনপ্রিয়তা সর্বোচ্চ। এ কাণে তার সাথে লড়ার মতো একজন প্রতিদ্বন্দ্বীও নেই। সবাই নাজমুল হাসান পাপনের নেতৃত্বের প্রতি অবিচল আস্থা রাখেন। এখন পর্যন্ত বোর্ডে তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রকাশতো দূরের কথা, কোনো নেতিবাচক অভিযোগও শোনা যায়নি।

তবে এরকম জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা অবস্থায় শুধু দায়িত্ব শতভাগ পালন করতে পারবেন না এমন অজুহাতে তার বিসিবি প্রধানের পদ থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ইচ্ছে প্রকাশ, নতুন প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে বোর্ড পরিচালকদের কেউ এ নিয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও একটি চাঞ্চল্যকর তথ্য ইতোমধ্যে গুঞ্জন সৃষ্টি করেছে। বোর্ডের নির্ভরযোগ্য এক সূত্র আভাস দিয়েছে, নাজমুল হাসান পাপন বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে যাচ্ছেন। সম্ভবত আ হ ম মোস্তফা কামালের মতো নাজমুল হাসান পাপনও ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসির শীর্ষ পদে আসীন হতে আগ্রহী।

আইসিসির নিয়ম ও রীতি অনুযায়ী সভাপতি হবার আগে দুই বছর সহ-সভাপতি পদে থাকতে হয়। সূত্র মতে, নাজমুল হাসান পাপন আইসিসির পরবর্তী সহ-সভাপতি হতে চাচ্ছেন।

বলার অপেক্ষা রাখে না, আইসিসির প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী সহ-সভাপতি বা সভাপতি হতে হলে কোনো দেশের বোর্ডের শীর্ষ পদে থাকা যাবে না। অর্থাৎ বিসিবি সভাপতি পদে থেকে আইসিসির বড় পদ লাভের কোন সুযোগ ও সম্ভাবনা থাকে না। ধারণা করা হচ্ছে এ কারণেই আগে ভাগে বিসিবি প্রধান পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর চিন্তা ভাবনা পাপনের।

প্রতিক্ষণ/এডি/রন

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

0cc0