আজ মনে পড়ছে তাঁর কথা

প্রথম প্রকাশঃ জুলাই ১৯, ২০১৬ সময়ঃ ১২:৫৫ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১:০৫ অপরাহ্ণ

শারমিন আকতার:

1

১৯ জুলাই। বাংলা সাহিত্য, সিনেমা আর নাটকে যিনি একচ্ছত্র আধিপত্য করে গেছেন; সেই কিংবদন্তী লেখক, নাট্যকার, পরিচালক এবং সুরকার হুমায়ূন আহমেদ এর মৃত্যুদিন। এ গুণী মানুষটিকে আরও অনেক নামে বিশেষায়িত করা যায়। তিনি গীতিকার আবার একজন শিক্ষকও ছিলেন বটে।

এছাড়া আমার দৃষ্টিতে তিনি এ যুগের হ্যামিলিয়নের বাঁশিওয়ালা। যার মোহন বাঁশির যাদুতে আমরা কপোকাৎ। যখন তাঁর নিজের লেখা ও পরিচালিত নাটক দেখতাম, মনে হতো আমি যা করার সাহস দেখাতে পারিনি; শুধু মনে মনে বলে গেছি, এই হুমায়ূনই শুধু তা করে দেখাতে পেরেছে। কষ্ট আড়ালে লুকিয়ে রাখতেন তাঁর নাটক, সিনেমায়; অনেকটা কুইজের মতো। খুঁজে বের করে নেওয়ার দায়িত্ব আমাদের দর্শকদের। আর আনন্দ, অবারিত নির্ভেজাল উচ্ছসিত নির্মল চঞ্চল ঝর্ণার মতো। যেদিকে চোখ যাবে শুধু হাসি-আনন্দে ভরপুর। অভিনেতার চোখে পানি তাও দর্শকদের মুখে হাসি। এই মানুষটি একসময় প্রায় নিয়মিতই নাটক-সিনেমার মধ্য দিয়ে আমাদের মনের খোরাক যোগাতেন।

আজ তিনি নেই। মহাকালের নিজস্ব নিয়মে তিনি হারিয়ে গেছেন দূর নিলীমায়। তবে রেখে গেছেন তাঁর কাজ। যার মাঝে তিনি ফিরে আসবেন বারবার প্রতিটি মুহূর্তে, প্রতিটি ক্ষণে। তাঁর রেখে যাওয়া কাজের মাঝে কান পেতে শুধু একটি কথাই শুনতে পাই,
‘আমি মৃত্যুর চেয়ে বড়
এই শেষ কথা বলে যাব আমি চলে।’

======

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

0cc0