বৈশাখে বের হওয়ার আগে যা খেয়াল রাখবেন

প্রথম প্রকাশঃ এপ্রিল ১৩, ২০১৭ সময়ঃ ১১:৪২ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১১:৫০ অপরাহ্ণ

শারমিন আকতার:

পহেলা বৈশাখ সমস্ত বাঙালিকে একত্রিত করে। সবাই মিলেমিশে আনন্দে মেতে উঠার দিন এই বাংলা নববর্ষ। তবে আনন্দের ভীড়ে যেন অসৌজন্যমূলক কোনো ঘটনা না ঘটতে পারে সেজন্য আমাদের সচেতন হতে হবে। ভালোর মাঝে কিছু ঘুণে ধরা পোকা থাকবে এটাই স্বাভাবিক। এজন্য কিছু কথা মাথায় রেখে ঘর থেকে বের হওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে বলে মনে করছি। সচেতনতা এবং সচেতন থেকে আনন্দে মেতে উঠুন। এখানে একজন নারীর কী ধরণের প্রস্তুতি নিয়ে ঘর থেকে বের হওয়া উচিত সে বিষয়গেুলোই তুলে ধরা হলো:

১. ভীড়ের মধ্যে কোনো অসভ্য পুরুষের অপ্রীতিকর আচরণের শিকার হলে চুপ করে থাকবেন না। সাথে সাথে তীব্র প্রতিবাদ করবেন।

২. নিজের কাছে অস্বস্তিকর লাগে এমন কাপড়/জুতা/মেইক আপ করবেন না।

৩. প্রতি মাসে চলমান পিরিওডের সময়কালটা মাথায় রেখে বের হবেন।

৪. আপনি বা আপনারা যখন ভীড়ের মধ্যে হাঁটবেন তখন বিশেষভাবে একটি বিষয় খেয়াল রাখবেন। যেদিকে অন্য সব মেয়েরা হাঁটছে সেদিকেই থাকুন। ভুলেও অসংখ্য ছেলের মাঝে যেন আপনি পড়ে না যান; এ বিষয়ে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখবেন।

৫. মোবাইলের চার্জ আছে কিনা কিংবা মোবাইলের পর্যাপ্ত ব্যালেন্সের কথাও মাথায় রাখতে হবে।

৬. শাড়ি পড়তে না জানলে এমন কারো সাহায্য নিন যিনি ভালোভাবে শাড়ি পড়াতে পারেন। রাস্তায় কোনো বিপত্তিকর পরিস্থিতির মুখোমুখি যেন না হতে হয়, খেয়াল রাখবেন। তারপরও যদি ভুল হয়ে যায়, ভয় পাবেন না। সাহসের সাথে নিজেকে সামলে নিন।

৭. দেশের পরিস্থিতি মাথায় রেখে দিনের আলো থাকতেই ঘোরাঘুরি পর্বটা সেরে নেবার চেষ্টা করবেন।

৮. ভীড়ের মধ্যে আপনার বাচ্চা মেয়েটিকে যেন কোনো অশ্লীল আচরণের শিকার হতে না হয়। বিশেষভাবে খেয়াল রাখবেন।

৯. তাড়াহুড়া করে হাঁটবেন না। এতে হোঁছট লেগে পড়ে যেতে পারেন।

১০. যেখানেই বেড়ান না কেন চারপাশটা একটু প্রথমেই দেখে নেবেন। খুব বেশি নিরিবিলিতে না যাওয়াই নিরাপদ।

১১. সচেতন ও সাবধান থাকলে যেকোনো বিপদ এড়িয়ে যাওয়াটা অনেকটাই সম্ভব। তাই সাহসের সাথে সমস্যা মোকাবেলা করুন। আপনার জন্য যে বিপদ হয়ে এসেছিল; আপনার সাহস, সচেতনতা ও সাবধানতা দেখে তার যেন আপনাকেই আপদ মনে হয়।

১২. কোথায় যাচ্ছেন তা ঘরের মানুষকে জানিয়ে দেওয়াটা সঠিক সিদ্ধান্ত হবে। তাহলে কোনো সমস্যা হলে তারাও দ্রুত সহযোগিতা করতে পারবে।

১৩. ঝামেলায় পড়ে গেলে অস্থির হবেন না। মাথা ঠান্ডা রেখে ধৈর্য সহকারে পরিস্থিতি নিজের আয়ত্তে আনার চেষ্টা করুন। পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে কথা, কাজ ও আচরণ বদল করুন।

১৪. ঘর থেকে বের হওয়ার সময় অবশ্যই সবকিছু ভেবে তবেই বের হবেন। মাথায় রাখবেন অনেক কিছুই ঘটতে পারে। তাই একবারের জন্যও অনিয়ন্ত্রিত কিছুই করতে যাবেন না। মনে রাখবেন বিপদ বারবার আসে না। বিশেষ করে কেউ যখন অসাবধান থাকে তখনই এর সম্ভবনা বেশি থাকে। সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশ এটা মনে রেখে চলতে হবে। এখানে যেকোনো সময় যেকোনো কিছু ঘটে যেতে পারে। মনে রাখবেন। তবে ভয় পাবেন না। সাহসের সাথে মোকাবেলা করুন। দিন শেষে বৈশাখী আনন্দের গল্পে মেতে উঠুন। যাত্রা শুভ হোক। শুভ নববর্ষ।

 

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

0cc0