দশেরায় শিবসাজ

প্রথম প্রকাশঃ অক্টোবর ২০, ২০১৫ সময়ঃ ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১১:৫০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক

male pujaঅতি খাসা মিহি সুতি

ফিনফিনে জামা ধুতি,

চরণে লপেটা জুতি জরিদার।

এ হাতে সোনার ঘড়ি,

ও হাতে বাঁকান ছড়ি,

আতরের ছড়াছড়ি চারিধার।

সুকুমার রায় বলেছেন যথার্থ। পূজোয় কি দশেরারাই সাজবে নাকি! একদম না। পুরুষও সাজগোজে পিছিয়ে নেই থাকবে না। কিছু যত্ন আত্তি আর ফ্যাশন সচেতনতা কিন্তু পুরুষেরও চাই। তাই খানিকটা সময় বের করুন। অনন্যাদের ভীড়ে হয়ে উঠুন অনন্য।  তৈরি করুন বেশি কিছু সচেতনতা। আশাকরি এবারের পূজোয় আপনার সাথে সবাই অন্তত একখানা ছবি তো তুলতেই চাইবে।

নিজের যত্ন নিন
পূজোয় কিংবা যেকোনো উৎসবে নিজেকে আগে পরিপাটি রাখতে হবে। সারাদিনের ব্যস্ততার মাঝেও কিন্তু নিতে পারেন নিজের যত্ন। ধরুন অফিস থেকে ফিরে আসার খেয়াল করলেন আপনার গায়ে থেকে দুর্গন্ধ আসছে। খুব সহজেই দূর করতে পারেন কিন্তু। কয়েকটা লবঙ্গ ফেলে দিন সাথে পানিতে মিশিয়ে নিন কয়েক টুকরা বরফ। ব্যাস হয়ে গেল সুন্দর সুগন্ধি স্নান।
আর অবশ্যই নখের যত্ন নিবেন। নখ দাত দিয়ে ইচ্ছামতো কাটবেন না। একটু কষ্ট করে নেইলকাটার দিয়ে সুন্দর করে রাখুন নখটি।
চুল কাটুন নিজের মুখের ধরণ দেখে। কেননা যে ফ্যাশনে দেশ সয়লাব সে ফ্যাশনে আপনাকে কিন্তু নাও মানাতে পারে। তাই একটু সমঝে, কেমন !

পূজায় ছেলেদের পোশাক-আশাক
পূজায় সব ফ্যাশন হাউজগুলোই ছেলেদের পোশাক নিয়ে বিশেষ আয়োজন শুরু হয়ে গিয়েছে। পূজার ক্ষেত্রে ধুতি-পাঞ্জাবি-উত্তরীয় সাধারণত পুরুষদের জন্য ঐতিহ্যবাহী পোশাক হলেও তরুণরা ধুতি পাঞ্জাবী একটু কমই পড়েন। তরুণ বয়েসী ছেলেরা টি-শার্ট, শার্ট, প্যান্ট, ফতুয়া পড়তেই বেশি আগ্রহী।

তবে পূজায় এখনও পাঞ্জাবি আর ধুতির আবেদনটাই একেবারে আলাদা। তাই দেশের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজে ইতোমধ্যেই উঠে গিয়েছে নানান স্টাইলের পাঞ্জাবি। তবে পূজার পাঞ্জাবির ক্ষেত্রে সাদার রঙই পছন্দ সকলের। এর পাশাপাশি চলে ঘিয়া রঙের পাঞ্জাবীও। পাঞ্জাবীর জন্য এন্ডি সিল্ক, সিল্ক, জামদানি, মসলিন , সিল্ক , জামদানি, মসলিন, রেশমী কটন, ধুপিয়ান কাপড় পছন্দ অনেকের।

তবে এক্ষেত্রে দিনের বেলা হালকা রঙের পাঞ্জাবিই প্রাধান্য দেন ছেলেরা। সাদা, ঘিয়ার পাশাপাশি শরতের স্নিগ্ধতা বজায় রাখতে নীল রঙও অনেকে ব্যবহার করেন পাঞ্জাবীর জন্য। এবং রাতের জন্য গাঢ় রঙের পাঞ্জাবী নির্বাচন করাই ভালো। লাল, কালো, সবুজ, চকলেট, মেরুন ইত্যাদি রঙের পাঞ্জাবী নির্বাচন করতে পারেন।

পাঞ্জাবীর সাথে সাদা বা অফ হোয়াইটের ধুতিই বেশি কেনা কিনে থাকেন ছেলেরা। পছন্দের দিক থেকে সিল্কের ধুতি প্রাধান্য দিয়ে থাকেন অনেকেই।

সময় বুঝে পোশাক
পূজোর সময়টা যেহেতু বিদায়ী গরম আর হালকা শীতের সন্ধিক্ষণ, তাই পোশাক হওয়া চাই আরামের। বাজার ঘুরে দেখা গেল, পাঞ্জাবির গলায় ব্যান্ড কলার, শার্টের কলার ছাড়াও আছে সাদামাটা কাট। তরুণদের জন্য পকেটসহ পাঞ্জাবিতে কাঁধের ওপর জুড়ে দেওয়া হয়েছে বেল্ট। কোনো কোনো পাঞ্জাবির কনুই ও কাঁধে কাজ করা হয়েছে। সুতার কাজ ছাড়াও ভিন্ন কাপড়ের প্যাচওয়ার্ক নকশা এবার বেশি দেখা যাচ্ছে।
রাতের সিল্কের পাঞ্জাবি ভালো দেখাবে। এক রঙের সাদামাটা পাঞ্জাবি পরেও বাজিমাত করতে পারেন ওপরে একটা প্রিন্স কোট পরে। সুতির একরঙা ও প্রিন্ট তো আছেই, এ ছাড়া মখমলের তৈরি প্রিন্স কোট এবার চলবে বেশ।male puja 1

এক্সেসরিজ
পূজায় পোশাকের পাশাপাশি এক্সেসরিজের দিকে লক্ষ্য রাখার প্রয়োজন রয়েছে। আপনি কিন্তু চাইলে খুব কম দামে আবার খুব অল্প সময়ে এগুলো আপনার সংগ্রহে রাখতে পারেন। যে যে এক্সেসরিজ বিশেষ করে পুরুষের জন্য প্রযোজ্য জেনে নিন তা এক নজরে ….

জুতো
পূজায় অনেক হাঁটতে হয় এবং মন্দিরে প্রবেশের সময় জুতো খুলে ঢুকতে হয়। তাই এইসময় জুতো পরার কোনো প্রয়োজন নেই। স্যান্ডেল জাতীয় জুতো পড়ুন যা পড়ে আপনি আরামে হাঁটতে পারবেন এবং দ্রুত খুলে ফেলতে পারবেন। এছাড়া পাঞ্জাবীর সাথে স্যান্ডেলই মানাবে। অন্যান্য পোশাকের মধ্যে ফতুয়া বা টী-শার্ট পরলেও স্যান্ডেল পড়তে পারবেন। আর একটু ট্র্যাডিশনাল সাজে থাকতে চাইলে কোলাপুরি স্যান্ডেল তো রয়েছেই।

সানগ্লাস
দিনের বেলা রোদের কারণে এবং ধুলোবালি থেকে বাঁচতে হাতের কাছে অবশ্যই রাখবেন সানগ্লাস।

উত্তরীয়
পাঞ্জাবী ও ধুতির সাথে উত্তরীয় নিতে একেবারেই ভুলে যাবেন না। এটি আপনাকে দেবে কিছুটা ঐতিহ্যবাহী লুক।

ঘড়ি: পুরুষের উৎসবের সাজে ঘড়ি থাকবে না তা কি হয়! পোশাক আর হাতের সাথে মানিয়ে নিয়ে নিন সুন্দর একটি ঘড়ি। আশাকরি ভাল লাগবে

ছাতা: পূজোয় খানিকটা রোদের ঝলমলে শরতের আভাস থেকেই যায়। তাই একটি ছাতা হাতে রাখুন। কাজে দেবে।

আসলে যেকোনো উৎসবের মূল কথা থাকে নির্মল আনন্দ। সেই আনন্দকে রঙিন করে তুলতেই কিন্তু আপনার রঙিন ও নির্মল পরিকল্পনাই যথেষ্ট।ভাল কাটুক উৎসব
প্রতিক্ষণ/এডি/এসএবি

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

20G