একজন আদর্শ শিক্ষকের মানদণ্ড যেমন হওয়া উচিত

প্রকাশঃ অক্টোবর ১৪, ২০১৭ সময়ঃ ৯:২৪ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৭:১৭ অপরাহ্ণ

শারমিন আকতার:

কিছু কিছু পেশা আছে যার সাথে সেবার সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শিক্ষকতা তার মধ্যে অন্যতম। যে কেউ চায়লেই শিক্ষক হতে পারেন; তবে প্রকৃত শ্রদ্ধাতুল্য কিংবা স্মরণযোগ্য হতে পারেন না। এটাই সত্যি, এটাই বাস্তবতা। তাই যার মধ্যে সেবার মানসিকতা নেই, তার প্রথম থেকেই শিক্ষক হওয়ার চিন্তা কিংবা চেষ্টা কোনোটাই করা উচিত নয়। তাতে তার এবং অসংখ্য শিক্ষার্থীর, জাতির অপকার বৈ উপকার হবার সম্ভাবনা ক্ষীণ। তবে আমাদের বাস্তব শিক্ষাব্যবস্থার বাস্তবতা বর্তমানে যেভাবে চলছে; তাতে সেবার চেয়ে বাণিজ্যটাই যেন মূখ্য ! এর চরম পরিণতিও ভোগ করছে অসহায় শিক্ষার্থীরা। দিনদিন শিক্ষকের প্রতি অশ্রদ্ধা বেড়েই চলেছে। ইদানিং ছাত্রের হাতে শিক্ষকের প্রহারের কথা হরহামেশা শোনা যায়; একই সাথে শিক্ষকের হাতে শিক্ষার্থীর লাঞ্চিত এবং বঞ্চিত হবার খবরও শুনতে হচ্ছে ! শুধু তাই নয়, শিক্ষকদের গবেষণা ও ডিগ্রি জালিয়াতির মতো ভয়ংকর খবরও কানে আসছে ! যা কখনই সমর্থনযোগ্য নয় এবং কারো কাম্যও নয়। তবে এ সমস্যার জন্য আমরা প্রত্যেকে কোনো না কোনোভাবে দায়ী। এ দায় আমরা কেউ এড়াতে পারি না। যাদের শিক্ষক হওয়ার ইচ্ছা; তাদের মধ্যে কিছু গুণের সমন্বয় থাকা বাঞ্চনীয়। এ মানদন্ড আমার শিক্ষকতা করার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি। এর সাথে অনেকের মতভিন্নতা থাকতে পারে।

তবে আমি মনে করি শিক্ষক হতে চাইলে-

১. সেবার মানসিকতা থাকতে হবে সবসময়
২. পড়ুয়া হতে হবে।
৩. যেকোনো বিষয়বস্তু সুন্দর ও সহজভাবে উপস্থাপন ক্ষমতা থাকতে হবে।
৪. কাউন্সেলিং করার ক্ষমতা থাকতে হবে।
৫. কন্ঠস্বর সুন্দর ও শ্রবণযোগ্য হতে হবে।
৬. শুদ্ধ উচ্চারণে কথা বলতে জানতে হবে।
৭.  সহনশীল মানসিকতা থাকতে হবে।
৮. ব্যক্তি চরিত্র ও নৈতিকতার বিষয়ে সম্পূর্ণ বির্তকমুক্ত থাকতে হবে।
৯. সবার আগে শিক্ষার্থীর বিষয়টা প্রাধান্য দেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে।
১০. নিজের মধ্যে নেতিবাচক মানসিকতাসম্পন্ন কোনো স্বভাব থাকলেও শিক্ষার্থীদের সামনে তা কখনও দেখানো যাবে না।
১১. নিজের দেশ, সমাজ, জাতীয়তার ব্যাপারে সবসময় ইতিবাচক মানসিকতা দেখাতে হবে। দেশপ্রেমে শিক্ষার্থীদের উজ্জীবিত করে তুলতে হবে।।
১২. দল-মত ভুলে গিয়ে সত্যকে তুলে ধরার মানসিকতা থাকতে হবে।
১৩. উপদেশ দেওয়ার মানসিকতা বাদ দিয়ে বাস্তবতার সাথে সামঞ্জস্য রেখে গল্পের মধ্য দিয়ে যেকোনো সমস্যার সমাধান উপস্থাপন করতে হবে।
১৪. মুখস্তবিদ্যাকে প্রথম ও প্রধান হিসেবে জোর না দিয়ে সৃজনশীলতার দিকে মনোযোগ দিতে হবে।
১৫. কে কোন দলের, মতের, আদর্শের সেভাবে চিন্তা না করে সকল শিক্ষার্থীকে সমান চোখে দেখার দৃষ্টিভঙ্গী থাকতে হবে।
১৬. সর্বোপরি একজন শিক্ষককে ব্যক্তিত্বসম্পন্ন হতে হবে।
শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে এই মানদণ্ডগুলো যদি কঠোরভাবে বিবেচনা করা হয়, তাহলে ভবিষ্যতে আমরা আবারও আদর্শ শিক্ষকদের সেই স্বর্ণালী দিনে ফিরে যেতে পারবো। যাদের হাত ধরে বেরিয়ে আসবে এক একজন আলোকোজ্জ্বল আলোকিত মানুষ।

শারমিন আকতার
সাংবাদিক

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য



আর্কাইভ

January 2023
S S M T W T F
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  
20G