খাগড়াছড়ির রিসাং ঝর্ণা

প্রকাশঃ মার্চ ১৭, ২০১৫ সময়ঃ ৩:১৮ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:২২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক,প্রতিক্ষণ ডটকম:

khagrachariপানির স্রোতধারা সে লতাগুল্মকে ভেদ করে গড়িয়ে পড়ছে ভুমিতে। তৈরি করছে স্রোতস্বিনী জলধারা। সে যে কি এক বুনোপরিবেশ না দেখলে বিশ্বাস হবে না কারও।

শ্রাবনের প্রবল বর্ষণে যখন পুরো জঙ্গল ফিরে পায় তার চিরসবুজ, হয়ে উঠে সতেজ আর নবযৌবন।

সেই স্বচ্ছ পানি পাহাড়ের শরীর বেঁয়ে আছড়ে পড়ছে বড় বড় পাথরের গায়ে, গুড়ি গুড়ি জলকনা আকাশের দিকে উড়ে গিয়ে তৈরি করছে কুয়াশার আভা।

স্রোতধারার কলকল শব্দ করে এগিয়ে যাচ্ছে পাথরের পর পাথর কেটে সামনের দিকে। ভালোলাগায় ভরিয়ে দেয় মন প্রাণ। জলের কোমল পরশে শরীর জুড়িয়ে যায় মূহুর্তেই। এমনই পরিবেশের ছোয়া পেতে হলে আপনাকে যেতে হবে ঐ মনোরম পরিবেশে যার নাম রিসাং ঝর্ণা।

পাহাড়ের রানী যাকে বলা হয় সেই খাগড়াছড়িতে অবস্থিত রিসাং ঝর্ণা। খাগড়াছড়ি শহর থেকে ১১ কিলোমিটার পথ গাড়িতে করে গিয়ে দেখা মিলবে এই মনমুগ্ধকর পরিবেশের। মূল রাস্তা থেকে উত্তরে গেলেই ঝর্ণার কলধ্বণি শুনতে পাবেন। এখানে পাশাপাশি দুটি ঝর্ণা রয়েছে। পর্যটকদের সুবিধার জন্য একটি ঝর্ণায় যেতে পাকা সিঁড়ি দিয়ে রাস্তা তৈরি করা হয়েছে।

তাই সহজে এই ঝর্ণায় যাওয়া যায়। প্রথমটি থেকে আরও ২০০ গজ ভেতরে আরও একটি ঝর্ণা। জেলা শহর থেকে ঝর্ণা স্থলের দুরত্ব সাকুল্যে ১১ কি: মি: প্রায়। উঁচু পাহাড়ের গা ঘেঁষে পায়ে হেঁটে যেতে যেতে যে কারো দৃষ্টি আটকে যাবে পাহাড়ী সবুজ আর জীবনধারায়। হাজার ফুট নীচের উপত্যকায় দৃষ্টি পড়লে কোন অপূর্ব মুগ্ধতায় যে কেউ শিউরে উঠবেন।

প্রাকৃতিক এই ঝর্ণাটি প্রায় ৩০ মিটার উঁচু থেকে আছড়ে পড়ছে নিচে। পুরোটাই পাথুরে পরিবেশ। পাহাড়ের প্রায় ১০০ ফুট উপর হতে ঝর্নার পানি নিচে পড়ছে। নিচে পড়ার পর তা আবার আরও ১০০ ফুট পাথরের ওপর গড়িয়ে নেমে আসে সমতলে। এটি এর একটি স্বাতন্ত্র রূপ যা আপনার কল্পনাকেও ছাড়িয়ে যাবে।

রিসাং ঝর্ণার জলে নেমে আপনি সাঁতার কাটতে পারবেন,  ঝর্ণার ঝরে পড়া পানিতে প্রাকৃতিক শাওয়ার নিতে পারবেন, এমনকি যারা একটু দুরন্ত প্রকৃতির তাদের জন্য এখানে ওয়াটার রাইডের ব্যবস্থাও রয়েছে। সবই বিনা পয়সায়।

ঝর্ণার পানিটা যেখান থেকে পড়ছে সেই মাথায় চলে যাবার রাস্তা আছে তাই সেখানে চলে যান, জায়গাটা সমতল বিধায় গোসলের পার্টটা সেখানে সারাই ভালো। ওই জায়গা থেকেই ফেরার জন্য আরেকটা উচু পথ দেখতে পাবেন। ক্ষণিকের জন্য ভূলেই যেতে হবে কোথায় আছি, কিভাবে আছি। উপরে আকাশ, চারিদিকে বন, পায়ের নিচে ঝিরির স্বচ্ছ জল আর সম্মুখে অপরূপ ঝর্ণা। নিজেকে না হারিয়ে আর কি কোন উপায় আছে?

যেভাবে যাবেন
ঢাকা থেকে আসতে হলে কলাবাগান, কমলাপুর ও সায়েদাবাদ থেকে সৌদিয়া, এস আলম, স্টার লাইন বা শান্তি পরিবহনে খাগড়াছড়ি শহরের শাপলা চত্বরে নামতে হবে। যাঁরা চট্টগ্রাম থেকে আসবেন, তাঁরা চট্টগ্রামের অক্সিজেন মোড় থেকে শান্তি পরিবহনের বাসে উঠে খাগড়াছড়ি শহরের শাপলা চত্বরে নামবেন।

প্রতিক্ষণ/এডি/আকিদ

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য



আর্কাইভ

January 2023
S S M T W T F
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  
20G