রোয়ান থেকে মি. বিন

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৫ সময়ঃ ২:৫৫ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:৩৫ অপরাহ্ণ

প্রতিক্ষণ ডেস্ক

mr bean 3সবার কাছে তিনি মি. বিন নামে পরিচিত। আর এই নামটি শুনলেই শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলেই হেসে ওঠেন। কিন্তু তার আসল নাম কিন্তু মি. বিন নয়। তার প্রকৃত নাম রোয়ান অ্যাটকিনসন। যেসব শিল্পীরা নির্বাক ছবিতে অভিনয় করে সবাক যুগের মানুষকে অবাক করে যাচ্ছেন তাদের মধ্যে রোয়ান এ্যাটকিনসন অন্যতম। রোয়ান অ্যাটকিনসন ‘মি. বিন’ ছাড়া আরও অনেক মুভি ও অনুষ্ঠানে তিনি অভিনয় করেছেন। কিন্তু তিনি সারা বিশ্বের মানুষের মনে দাগ কেটেছেন এই ‘মি. বিন’ অনুষ্ঠানটির মাধ্যমেই। এই অনুষ্ঠানটির মাধ্যমেই তার নাম ‘রোয়ান অ্যাটকিনসন’ এর বদলে হয়ে যায় ‘মি. বিন’। সারাবিশ্বে তিনি এখন এই নামেই পরিচিত। প্রতিক্ষণের পাঠকদের জন্য মি. বিন অর্থাৎ রোয়ান অ্যাটকিনসন এর জীবনের খুঁটিনাটি বিষয় থাকছে আজ।

জন্ম ও পরিবার

১৯৫৫ সালের ৬ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নিউক্যাসলে জন্মগ্রহণ করেন এই ইংলিশ অভিনেতা, কমেডিয়ান এবং নাট্যকার। তার পুরো নাম রোয়ান সেবাস্টিয়ান অ্যাটকিনসন। ডাক নাম রো। তার বাবার নাম এরিক অ্যাটকিনসন এবং মায়ের নাম এলা মে। তিন ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট মি. বিন।

পড়াশোনা

মি. বিন ডারহামের ক্যাথেড্রাল স্কুল, নিউক্যাসল বিশ্ববিদ্যালয় এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মাস্টার্স করেন।

অভিনেতা হয়ে ওঠাmr bin

ছোটবেলা থেকেই রোয়ান অ্যাটকিনসন ছিলেন বেশ হাসিখুশি একজন মানুষ। কিন্তু কথা খুব কম বলতেন। যেটা তার অভিনয়ে এখন দেখা যায়। রোয়ান অ্যাটকিনসন ডারহামের ক্যাথেড্রাল স্কুলে পড়তেন। সেখানে একটি ফিল্ম সোসাইটি ছিল। সেই ফিল্ম সোসাইটির প্রধান বিষয় ছিল হাসির ও শিশুতোষ বিষয়ক বিভিন্ন সিনেমা দেখানো।

১২ বছর বয়স পর্যন্ত নিজের চোখে টেলিভিশন দেখা হয়ে ওঠেনি রোয়ান অ্যাটকিনসনের। স্কুলে যখন চার্লি চ্যাপলিন সহ আরও যারা কমেডি অভিনেতাদের মুভিগুলো দেখতেন এবং নিজের অজান্তেই তাদের নকল করা শুরু করেন। এরপর এক সময় মঞ্চের বেকস্টেজে কাজ করা শুরু করেন। বেকস্টেজ থেকে চলে আসেন মূল মঞ্চে। মঞ্চে রোয়ান অ্যাটকিনসন এর অভিনয় দেখে তার স্কুলের প্রধান শিক্ষক তাকে অভিনয়কে সিরিয়াসভাবে নেওয়ার পরামর্শ দেয়। কিন্তু পড়াশোনার ক্ষেত্রে রোয়ান অ্যাটকিনসন ছিলেন সিরিয়াস। কেননা পড়াশোনায় তিনি খুব ভালো ছিলেন।

তাই পড়াশুনাটাকেই সবসময় প্রাধান্য দিয়েছেন। তবে অভিনয় করা কিংবা কমেডিয়ান হওয়া কোনোটিই তার লক্ষ্য ছিল না। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে পড়াকালীন সময়ে রিচার্ড কার্টিসের সাথে পরিচয় হয় মি. বিনের। রিচার্ড কার্টিস ছিলেন একজন নাট্যকার ও গীতিনাট্য অভিনেতা। রিচার্ড সাধারণত কমেডি চরিত্রে অভিনয় করতেন। রিচার্ড কার্টিস ও রোয়ান অ্যাটকিনসন দুজনে মিলে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে গড়ে তোলেন ‘অক্সফোর্ড নাট্যশালা’। রিচার্ড কার্টিসের সঙ্গে নাটক লেখাও শুরু করেন। সেইসঙ্গে কমেডি নাটকে অভিনয়। রিচার্ড কার্টিসের সঙ্গে একসাথে রোয়ান অ্যাটকিনসন বিবিসি রেডিও থ্রিতে দ্য অ্যাটকিনসন পিপল নামের একটি স্যাটারিক্যাল ইন্টারভিউধর্মী অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতেন।

জনপ্রিয় হয়ে ওঠা

বর্তমান সময়ে মি. বিন তার অভিনীত মুভি ও টিভি অনুষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে জনপ্রিয় হলেও শুরুর দিকে কমেডি বই লিখে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন মি. বিন।
১৯৭৯ সালে তার লেখা স্কেচ কমেডি শো ‘নট দ্যা নাইট’ ও ‘ক্লোক নিউজ’ নামের বইয়ের মাধ্যমে পাঠক হৃদয়ে বেশ ভালোভাবে জায়গা করে নেন রোয়ান অ্যাটকিনসন। বইটি এতটাই জনপ্রিয়তা লাভ করে যে, বেস্ট সেলিং এর তকমাটা নিজের করে নেয়। এখানেই শেষ নয়। এই বইটি ব্রিটিশ একাডেমি অ্যাওয়ার্ড ও আন্তর্জাতিক এমি অ্যাওয়ার্ডও জয় করে নেয়।
পরবর্তীতে এই বই থেকে টিভি কমিক অনুষ্ঠান তৈরি করা হয় এবং তাতে অভিনয় করেন স্বয়ং রোয়ান অ্যাটকিনসন। প্রথমে লেখনি দিয়ে জয় করেছেন একাধিক পুরস্কার এবার অভিনয় দিয়েও জয় করলেন একাধিক পুরস্কার। এই টিভি কমিক অনুষ্ঠানে অভিনয় করে রোয়ান অ্যাটকিনসন জয় করেন ব্রিটিশ একাডেমি অ্যাওয়ার্ড ও বিবিসি বর্ষসেরা ব্যক্তিত্বের পুরস্কার। এই সিরিজে অভিনয়ের মাধ্যমে ১৯৮০ সালের সেরা কমেডিয়ান হিসেবে নির্বাচিত হন রোয়ান অ্যাটকিনসন।

বিয়ে ও সংসারmr bin 2
১৯৯০ সালে রোয়ান অ্যাটকিনসন মেকআপ আর্টিস্ট সুনেত্রা শাস্ত্রির সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বেনজামিন এবং লিলি নামে তাদের দুইটি সন্তান রয়েছে।

মি. বিনের শুরু
১৯৯০ সালে ‘মি. বিন’ নিয়ে টেলিভিশন পর্দায় হাজির হন রোয়ান অ্যাটকিনসন। মি. বিন মূলত ১৪ পর্বের একটি হাস্যরসাত্মক ব্রিটিশ টিভি ধারাবাহিক। আইটিভি নামক একটি টেলিভিশন চ্যানেলে এর প্রথম পর্বটি প্রচারিত হয় ১৯৯০ সালের প্রথম দিনটিতে। শেষ পর্বটির নাম ‘হেয়ার বাই মি. বিন অব লন্ডন’।

প্রথমে শুধু টিভি সিরিয়াল থাকলেও মি. বিন নিয়ে সিনেমা এমনকি কার্টুনও নির্মিত হয়েছে এবং মি. বিন প্রতিটি ক্ষেত্রেই অসম্ভব জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। টানা বিশ বছর রোয়ান এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন। শুরুর দিকে মি. বিন ছাড়াও এ সময় তিনি দ্যা ব্ল্যাক অ্যাডার এবং ফানি বিজনেসসহ বেশ কয়েকটি তুমুল জনপ্রিয় টিভি সিরিজে নিয়মিত অভিনয় করেন। কিন্তু সবগুলোকে ছাড়িয়ে যায় ‘মি. বিন’।mr bean 4

এমনকি নিজের নামটাকেও হারাতে হয় রোয়ান অ্যাটকিনসনকে। তারই তালগোল পাকানো কাণ্ড-কারখানায় ভরপুর এ ব্রিটিশ কমেডি সিরিজের লেখক হলেন রবিন ড্রিসকল এবং রোয়ান অ্যাটকিনসন নিজে। ১৯৯৭ সালে ‘বিন: দ্য আলটিমেট ডিজাস্টার মুভি’ এবং ২০০৭ সালে ‘মিস্টার বিন’স হলিডে’ চলচ্চিত্র দুটি মুক্তি পায়। এছাড়া যুক্তরাজ্যের ‘আইটিভি ওয়ান’ চ্যানেলে ২০০২ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ‘মিস্টার বিন’ কার্টুন প্রচারিত হয়।
চলচ্চিত্রে অভিনয়

১৯৮৩ সালে মুক্তি পায় রোয়ান অ্যাটকিনসন অভিনীত জেমস বন্ড সিরিজের ছবি ‘নেভার সে নেভার এগিন’ মুভিটি। মুভিটিতে রোয়ান অ্যাটকিনসন গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে অভিনয় করেন। এটিই রোয়ান অ্যাটকিনসন অভিনীত ১ম মুভি। এরপরের বছর রোয়ান অ্যাটকিনসন অভিনয় করেন ‘ডেড অন টাইম’ মুভিটিতে। এটিতে রোয়ান লিডিং চরিত্রে অভিনয় করেন। এরপরের বেশ কয়েকবছর তার অভিনীত কোনো মুভি মুক্তি পায় নি। ১৯৮৯ সালে মুক্তি পায় ‘দ্যা টল গাই’ মুভিটি। একই বছর স্টিভেন রাইটের সঙ্গে ‘দ্য অ্যাপয়েনমেন্টস অব ডেনিস জেনিংস’ নামের শর্ট ফিল্মে অভিনয় করে জিতে নেন একাডেমি অ্যাওয়ার্ড। ১৯৯০ সালে মুক্তি পায় ‘দ্যা উইচেস’, ১৯৯৩ সালে মুক্তি পায় ‘হট শটস’, ১৯৯৪ সালে মুক্তি পায় ‘ফোর ওয়েডিং এন্ড এ ফিউনারেল’, ১৯৯৭ সালে মুক্তি পায় ‘বিন’, ২০০০ সালে মুক্তি পায় ‘মেবি বেবি’, ২০০১ সালে মুক্তি পায় ‘রেট রেস’, ২০০২ সালে মুক্তি পায় ‘স্কুবি ডু’, ২০০৩ সালে মুক্তি পায় ‘জনি ইংলিশ’ ও ‘লাভ একচুয়েলি’, ২০০৫ সালে মুক্তি পায় ‘কিপিং মাম’, ২০০৭ সালে মুক্তি পায় ‘মি. বিনস হলিডে’ এবং সর্বশেষ ২০১১ সালে মুক্তি পায় ‘জনি ইংলিশ রিবর্ন’ মুভিটি। রোয়ান অ্যাটকিনসন অভিনীত অন্যান্য মুভিগুলোর মধ্যে রয়েছে –’দ্য সিক্রেট পুলিশ ম্যান’স বল’, ‘দ্য ব্লাক এডার’, ‘ব্লাক এডারস ক্রিসপাস ক্যারোল’, ‘ব্লাক এডার গোজ ফোর্থ’, ‘বার্নারড অ্যান্ড দ্য জেনি’, ‘দ্য লায়ন কিং’ এবং ‘আ থিন ব্লু লাইন’।

মি. বিন থেকে রোয়ান অ্যাটকিনসনের বিদায়

২০১২ সালের নভেম্বরে রোয়ান অ্যাটকিনসন ডেইলি টেলিগ্রাফকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বিন চরিত্রে আর হাজির না হওয়ার ঘোষণা দেন। কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন এই চরিত্রটি দিনে দিনে তাকে শিশুতে রূপান্তর করে দিচ্ছে। এই চরিত্রটি ফুটিয়ে তোলার জন্য যে শারীরিক শক্তির প্রয়োজন হয় সেটিও আজকাল আর তিনি পাচ্ছেন না। এছাড়া তার মতে, একজন পঞ্চাশ ঊর্ধ্বের ব্যাক্তিকে শিশুসুলভ অভিনয় করাটা একেবারেই বেমানান। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এখন থেকে আমি সিরিয়াসধর্মী চরিত্রগুলোতেই শুধু অভিনয় করব।’ সুতরাং এই চরিত্রে তাকে আর দেখা যাবে না কখনোই।
রোয়ান অ্যাটকিনসনের পছন্দ অপছন্দmr bean
ব্যক্তিগত জীবনে রোয়ান খুবই চুপচাপ স্বভাবের। প্রয়োজনের অতিরিক্ত কথা বলতে ওর মোটেও ভাল লাগে না। আর কথা কম বলতে পছন্দ করেন বলেই হয়ত মি. বিন চরিত্রেও এর প্রতিফলন দেখা যায়। রোয়ান অ্যাটকিনসন এর শখ হলো স্পোর্টস কার সংগ্রহ করা। মজা পান নিজের টেনিস কোটের চারপাশে তার ছোট্ট রেসিং কারটি নিয়ে ঘুরে বেড়াতে। ব্রিটিশ কার ম্যাগাজিনেও নিয়মিত লেখেন তিনি।

অনন্য রোয়ান অ্যাটকিনসন
২০০৫ সালের রম্য দর্শকদের ভোটে ব্রিটিশ কমেডি ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ৫০ কমেডিয়ানের তালিকায় নাম ওঠে রোয়ানের। ইংল্যান্ডের রাজনীতি এবং রাজপরিবারে রোয়ানের যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। রাজ পরিবারের বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ডারহামের ক্যাথেড্রাল স্কুলে রোয়ানের সঙ্গী ছিলেন টনি ব্লেয়ার (যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী)। টনি গম্ভীর আর রোয়ান আমুদে আর রসিক হলেও দু’জনের মধ্যে ছিল খুব ভাল বন্ধুত্ব।

মৃত্যুর গুজব

রোয়ান অ্যাটকিনসন এখনো পৃথিবীর বুকে বহাল তরিয়তে রয়েছেন। অথচ ২০১২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি এক টুইটের মাধ্যমে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পরে তার মৃত্যুর সংবাদ। ঘন্টাখানেকের মধ্যেই অফিসিয়ালি ভাবেও মৃত ঘোষণা করা হয় রোয়ান অ্যাটকিনসনকে। এরপর ফেসবুক, গুগল সহ বিভিন্ন মাধ্যমে বাতাসের বেগে ছড়িয়ে পড়ে তার মৃত্যুর খবর। কিন্তু এটি পুরোটাই ছিল গুজব। পরবর্তীতে ডেইলি মেইল এর এক সাংবাদিক এই গুজব সংবাদটিকে মিথ্যা অভিহিত করে বলেন, সংবাদটি পুরোটাই গুজব, রোয়ান অ্যাটকিনসন সুস্থ্য আছেন এবং এই গুজবটি ফিলিপাইন থেকে ছড়ানো হয়েছে। তবে সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হল – ভার্চুয়াল তথ্যকোষ উইকিপিডিয়াও রোয়ান অ্যাটকিনসন এর মৃত্যু তারিখ আপডেট করে ফেলে।
প্রতিক্ষণ/এডি/এনজে

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য



আর্কাইভ

February 2024
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
242526272829  
20G