আমার বাংলা বর্ণমালা

প্রথম প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৮ সময়ঃ ১:২৩ পূর্বাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:৫১ অপরাহ্ণ

অ-তে অমর, আ-তে আমার, ই-তে ইতিহাস (অমর আমার ইতিহাস)। বাংলা ভাষা, এ শুধু ভাষা নয়, একটি জ্বলন্ত ইতিহাসের স্রোতধারা। এর প্রতিটি অক্ষরে মিশে আছে ভাষা শহিদদের রক্ত। আমাদের সবুজ তরুণ দু:সাহসী ভাষা সংগ্রামীরা লাল রক্ত দিয়ে লিখেছে বাংলার প্রতিটি অক্ষর অ, আ, ক, খ। আমাদের জন্য, তোমাদের জন্য। সময় পেরিয়ে গেলে অনেক স্মৃতি বিস্মৃত হয়ে যায় আমাদের মানসপট থেকে। জমা হয় আবার নতুন স্বপ্নস্মৃতি। কখনও তা আনন্দের আবার কখনও তা কষ্টের কিংবা কখনও তা ঘোর লাগা বেঘোরের।

তবে সবকিছু ছাপিয়ে, সমস্ত বিপদসংকুল পথ মাড়িয়ে, দুর্বিসহ পরিবেশ মোকাবেলা করে একুশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে, দাঁড়িয়ে আছে, দাঁড়িয়ে থাকবে। কারণ সমস্ত ভাষা সংগ্রামীরাই একুশের পথ চলার প্রেরণা। রাত যত গভীর হোক, চাঁদ লুকিয়ে অমাবস্যা আসুক; বাংলা ভুলে গিয়ে কেউ অন্য ভাষাভাষী হোক, তাতে কি? আমাদের শহীদেরা এই অন্ধকারে মশাল হয়ে আলো জ্বালাবে, কভু ভুলতে দেবে না তাঁদের ত্যাগের বর্ণমালাকে।

কখনও ভেবে দেখেছো, এত বিচিত্র সুন্দর বর্ণমালা ভুলে যাওয়া যায় কী করে? কাছে এসো। চেয়ে দেখ একবার, প্রতিটি বর্ণে লুকিয়ে আছে রক্তাক্ত মিছিলের গল্প, ১৪৪ ধারা অমান্য করে বুলেটের সামনে বুক চিতিয়ে দাঁড়ানোর গল্প। সালাম-রফিক-বরকতসহ নাম না জানা তরুণদের দু:সাহসীতার গল্প। বাংলা অক্ষরে মুখর হয়ে উঠে সেদিনের সব ব্যালট-ফ্যাস্টুন ‘অ আ ই ক খ গ’, ‌‌’বাংলা আমার মায়ের ভাষা’,   ‌‌’রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’।

তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান সফর উপলক্ষ্যে আয়োজিত রেসকোর্স ময়দানের সমাবেশে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ঘোষণা করেছিল “উর্দু এবং একমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা”। হয়েছে কি তা? আমাদের ভাষা সৈনিকেরা কি তা হতে দিয়েছে?  দেয়নি, শুধুমাত্র আমাদের কথা ভেবে, তোমাদের কথা ভেবে। জিন্নাহ’র প্রতিটি শব্দ, প্রতিটি অক্ষর আজ ভুল প্রমাণিত হয়েছে।

বাংলা এখন আর শুধু স্বাধীন বাংলাদেশের গন্ডিতে থাকা বাংলার মানুষের একার সম্পদ নয়। পৃথিবীর আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সমস্ত বাঙালির প্রাণের ভাষা, মনের ভাষা, মুখের ভাষা, মায়ের ভাষা। চাইলেই কি তা ভোলা যায়?

বাংলাদেশ, আমার স্বদেশ, বাংলা ভাষা, আমার প্রিয় বাংলাদেশের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। কী করে ভুলি, আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী?

 

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

0cc0