টিয়া পাখি কিয়ার হিংস্রতা

প্রকাশঃ মার্চ ৫, ২০১৭ সময়ঃ ৩:৫৮ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৫৮ অপরাহ্ণ

প্রতিক্ষণ ডেস্ক:

অবসরে সময় কাটানো আর আধো আধো বোল শোনার জন্য উদগ্রীব হয়ে, শখ করে অনেকেই ঘরে টিয়া পাখি পুষে থাকেন। যদি বলা হয়, যে টিয়া পাখিটির সৌন্দর্য্যে আপনি মোহিত হয়ে রয়েছেন তার রয়েছে ভয়ংকর একটি রূপ।

আপনি হয়তো খানিকটা বিস্মিত হয়ে ভাবছেন, এমনতো কিছুই দেখিনি। ঘরের পোষা টিয়া পাখি ভয়ংকর কোন আচরণ আপনাকে না দেখালেও, নিউজিল্যান্ডের দক্ষিণে আল্পাইন অঞ্চলের টিয়াপাখির দল কিন্তু এক্ষেত্রে কোন রকম ছাড় দিবে না আপনাকে।

টিয়া পাখির একটি প্রজাতির নাম কিয়া। প্রায় ৪৮ সে.মি লম্বা, সবুজ ও ধূসর বাদামি বর্ণের টিয়া পাখি কিয়া দেখতে অন্যসব টিয়াপাখিগুলো থেকে যেমন খানিকটা ভিন্ন, তেমনি এদের মাঝে রয়েছে ব্যতিক্রমী কিছু বৈশিষ্ট্য। শুধমাত্র নিউজিল্যান্ডের দক্ষিণে আল্পাইন অঞ্চলে দেখা মিলবে বিরল এই পাহাড়ি টিয়া পাখিদের। সমুদ্র তীর কিংবা পাহাড়ি গর্ত এদের মূল আবাসস্থল।

এরা সাধারণত দল বেঁধে নির্দিষ্ট এলাকায় কলোনি আকারে একত্রে বসবাস করতেই বেশি পছন্দ করে। মাটির গর্তে বেড়ে উঠে এদের ছানারা। মূলত বুদ্ধিমত্তা ও কৌতুূহলী বৈশিষ্ট্যের কারণে টিয়াপাখি কিয়া বেশি পরিচিত হলেও এদের রয়েছে ভয়ংকর একটি রূপ।
খাবার হিসেবে বন্য ইঁদুর কিংবা পোকামাকড় প্রথম পছন্দ হলেও মৌসুম পরিবর্তনে খাবার সংকট দেখা দিলে এরা হয়ে উঠে হিংস্র।

এ সময়, পূর্ণ বয়স্ক টিয়াপাখির দল যখন খাবারের সন্ধানে সমুদ্রে মাছ শিকারে ব্যস্ত থাকে, তখন শব্দ অনুসরণ করে তাদের ছানাদের উপর ঝাঁপিয়ে পরে খাদ্য অন্বেষণকারী কতিপয় টিয়ার দল।

ব্লেডের মতো তীক্ষ্ণ ঠোঁট দিয়ে মাটির গর্ত থেকে নিজ প্রজাতির ছানাদের বের করে এনে, এরা দল বেঁধে মেতে উঠে ভক্ষণ উৎসবে।

এখানেই শেষ নয়, এদের হিংস্রতা এতোটাই ভয়াবহ হয়ে উঠে যে, মাঝে মধ্যে জীবন্ত প্রাণীদের দেহেও কামড় বসিয়ে মাংস ভক্ষণের চেষ্টা করে এরা। আর তাই, কিয়া পরিচিত বিশ্বের একমাত্র মাংশাসী ভয়ংকর টিয়াপাখি হিসেবে।

ভয়ংকর হলেও টিয়াপাখি কিয়া আকৃষ্ট করছে পর্যটকদের । আর তাই, নিউজিল্যান্ডের আল্পাইন অঞ্চলে কৌতূহলী পর্যটকদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।

প্রতিক্ষণ/এডি/এস.আর.এস

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য



আর্কাইভ

February 2024
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
242526272829  
20G