আরামদায়ক পোশাক চাই গর্ভবতী মায়ের

প্রথম প্রকাশঃ জানুয়ারি ১৮, ২০১৫ সময়ঃ ২:৫৩ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ২:৫৩ অপরাহ্ণ

pregnant-dress-2লাইফস্টাইল ডেক্স, প্রতিক্ষণ ডটকম:

ছোট্ট একটি শব্দ মা কিন্তু দায়িত্ব আর সম্মান সবার ওপরে। দীর্ঘ দশ মাস পেটে ধারণ করে প্রসব বেদনা সহ্য করার পর একজন নারী মা হন। তখন নতুন করে শুরু হয় সন্তানকে লালন পালনের দায়িত্ব। কিন্তু সন্তানকে যখন পেটে ধারণ করেন, তখন মায়ের কিছু যত্নের দরকার হয়। কারণ গর্ভাবস্থায় মায়েদের শারীরিক গঠনেও পরিবর্তন আসে।

এখনকার বেশিরভাগ নারী কর্মজীবী। সন্তান প্রসবের কিছুদিন আগ পর্যন্ত তাদেরকে কর্মস্থলে যেতে হয়। পোশাক আরামদায়ক না হলে অনেকটা সময় অস্বস্তির সঙ্গে পার করতে হয়। তাই নিজের ও সন্তানের আরামের কথা চিন্তা করে কর্মস্থলে অথবা বাইরে কোথাও সুতি ঢিলেঢালা টপস পরে যেতে পারেন। মাতৃত্বকালীন সময়েও চাইলে পরতে পারেন এ ধরনের পোশাক। তবে ডিজাইনে একটু পরিবর্তন আনতে হবে। কোমরের কাছটা করতে হবে বেশ খানিকটা ঢিলেঢালা। চাইলে কোমরের একটু ওপর থেকে কুচি দিতে পারেন। আর একটি লং করে বানিয়ে পরা যেতে পারে ধুতি-সালোয়ার অথবা ডিভাইডারের সঙ্গে।

অনেকেই চান এ সময় সালোয়ার-কামিজ পরতে। শীতে বানাতে পারেন হাতা লম্বা লং কামিজ। গরমের সময় হাতা ছোট দিতে পারেন অথবা হাত কাটা কামিজ পরতে পারেন। কোমরের ওপরের অংশে একরঙা কাপড় দিয়ে নিচের অংশে দিতে পারেন প্রিন্টের কাপড়। এতে অনেক সময় নিজের অবয়বটাও দেখতে ভালো লাগে।

গর্ভবতী মায়েদের আগের ও পরের সময় সবচেয়ে কমন পোশাক ম্যাক্সি। বাইরে পরে না গেলেও বাসায় অনায়াসে পরা যায়। আপনি চাইলে ম্যাক্সির গলার অংশটা তৈরি করে নিয়ে কুচিকাটা দিন। কাঁধে দিতে পারেন চিকন ফিতা। এতে আরামও পাবেন। আর বুকের অংশ থেকে কুচিগুলো ফেললে দেখতে যেমন সুন্দর হয়, তেমনি বেশ ঢিলেঢালাও হয়।

এসময় পোশাকের রং হালকা হওয়া উচিত। যেমন সাদা, গোলাপি ও আকাশি। এতে মনটাও সুরভিত থাকে। আর পরতে পারেন ছোট ছোট ফ্লোরাল কোনো নকশা করা কাপড়ের পোশাক। এ সময় যত নরম কাপড়ের পোশাক পরা যায় ততই আরাম পাওয়া যায়। তাই সূতি কাপড় পরাই ভালো। সুত্র : বাংলা মেইল

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

20G