গুণের রাজা কালিজিরা

প্রথম প্রকাশঃ ডিসেম্বর ২৬, ২০১৫ সময়ঃ ৫:৫৯ অপরাহ্ণ.. সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ

প্রতিক্ষণ ডেস্ক

কালো1কথায় আছে ,প্রথমে দর্শনধারী তারপর গুন বিচারী। যে জিনিসটার কথা বলছি তা ক্ষুদ্র আর কালো হলেও দেখতে কিন্তু মোটেও খারাপ নয়। আর গুণের কথা বলতে গেলে, এক কথায় অতুলনীয়। অনেকেই বলে জিনিসটি নাকি ৯৯ টা রোগের ঔষধী গুনে গুনান্বীত। এতক্ষণে নিশ্চয় বুঝে ফেলেছেন?হ্যা এই গুনের রাজার নাম কালিজিরা। এ সম্পর্কে নবী করিম (সাঃ) বলেছেন,মৃত্যু ব্যতীত সকল রোগের আরোগ্য রয়েছে কালিজিরায়। যা এতদিন আপনার ঘরেই ছিল কিন্তু কাজে লাগাননি। তাহলে আজ থেকেই এর ব্যবহার শুরু করে দিন ও সুস্থ থাকুন।আর জেনেও নিন এই ছোট্ট জিনিসটিতে কী কী গুন রয়েছে।

-চুলপড়া, মাথাব্যথা, অনিদ্রা, মাথা ঝিমঝিম করা, সৌন্দর্য রক্ষা, দুর্বলতা,  অলসতা, আহারে অরুচি, মস্তিষ্কশক্তি তথা স্মরণশক্তি বাড়াতেও কালোজিরা উপকারী।

-অরুচি, উদরাময়, শরীর ব্যথা, গলা ও দাঁতের ব্যথা, মাইগ্রেন, চুলপড়া, সর্দি, কাশি, হাঁপানি নিরাময়ে কালিজিরা সহায়তা করে। ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কালিজিরা সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

-মাথা ব্যথায় কপালে উভয় চিবুকে ও কানের পার্শ্ববর্তি স্থানে দৈনিক ৩/৪ বার কালোজিরা তেল মালিশ করলে উপকার পাওয়া যায়।

-কালিজিরা চূর্ণ ও ডালিমের খোসাচূর্ণ মিশ্রন, কালোজিরা তেল ডায়াবেটিসে উপকারী।

-চায়ের সাথে নিয়মিত কালোজিরা মিশিয়ে অথবা এর তেল মিশিয়ে পান করলে হৃদরোগে যেমন উপকার হয়, তেমনি মেদ ও বিগলিত হয়।

-মধুসহ প্রতিদিন সকালে কালোজিরা সেবনে স্বাস্থ্য ভালো থাকে ও সকল রোগ মহামারী হতে রক্ষা পাওয়া যায়।

-জ্বর, কফ, গায়ের ব্যথা দূর করার জন্য কালিজিরা যথেষ্ট উপকারী বন্ধু। এতে রয়েছে ক্ষুধা বাড়ানোর উপাদান। পেটের যাবতীয় রোগ-জীবাণু ও গ্যাস দূর করে ক্ষুধা বাড়ায়।

কালি

-কালিজিরায় রয়েছে অ্যান্টিমাইক্রোরিয়াল­ এজেন্ট, অর্থাৎ শরীরের রোগ-জীবাণু ধ্বংসকারী উপাদান। এই উপাদানের জন্য শরীরে সহজে ঘা, ফোড়া, সংক্রামক রোগ (ছোঁয়াচে রোগ) হয় না।

-কালিজিরা মেধার বিকাশের জন্য কাজ করে দ্বিগুণ।এটি নিজেই একটি অ্যান্টিবায়োটিক বা অ্যান্টিসেপটিক।

-দাঁতে ব্যথা হলে কুসুম গরম পানিতে কালিজিরা দিয়ে কুলি করলে ব্যথা কমে; জিহ্বা, তালু, দাঁতের মাড়ির জীবাণু মরে।

-দেহের কাটা-ছেঁড়া শুকানোর জন্য কাজ করে।

-কালিজিরার যথাযথ ব্যবহারে দৈনন্দিন জীবনে বাড়তি শক্তি অজির্ত হয়। এর তেল ব্যবহারে রাতভর প্রশান্তিপর্ন নিদ্রা হয়।

-বহুমুত্র রোগীদের রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং নিম্ন রক্তচাপকে বৃদ্ধি করে ও উচ্চ রক্তচাপকে হ্রাস করে।

-মস্তিস্কের রক্ত সঞ্চলন বৃদ্ধির মাধ্যমে স্মরণ শক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।

কালিজিরায় যা আছেঃ এর মধ্যে রয়েছে ফসফেট, লৌহ,ফসফরাস, কার্বো-হাইড্রেট ছাড়াও জীবাণু নাশক বিভিন্ন উপাদান সমূহ। এতে রয়েছে ক্যন্সার প্রতিরোধক কেরোটিন ও শক্তিশালী হর্মোন, প্রস্রাব সংক্রান্ত বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধকারী উপাদান, পাচক এনজাইম ও অম্লনাশক উপাদান এবং অম্লরোগের প্রতিষেধক।

 

প্রতিক্ষণ/এডি/জেডএমলি

আরো সংবাদঃ

মন্তব্য করুনঃ

পাঠকের মন্তব্য

20G